অনুগ্রহ করে অপেক্ষা করুন...

al-ihsan.net
বাংলা | English

বিদেশের খবর - ১২ ফেব্রুয়ারী, ২০১৩
 
ইউরোপ জুড়ে ঘোড়া ও গাধার গোশত কেলেঙ্কারি
আল ইহসান ডেস্ক:

যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্সের পর এবার ইউরোপের ১৬টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে গরুর গোশত ঘোষণা দিয়ে ঘোড়ার গোশত বিক্রির কেলেঙ্কারী।
উদ্ভূত পরিস্থিতিতে গতকাল ফরাসি মন্ত্রীরা গোশত শিল্পের শীর্ষ কোম্পানিগুলোর শীর্ষ কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনায় বসছে।
গত মাসে আয়ারল্যান্ডের এক খাদ্য পরিদর্শক যুক্তরাজ্যের সুপারমার্কেটের চেইন শপগুলোর বার্গারে ঘোড়ার গোশত পাওয়ার কথা ঘোষণা করে।
এরপর দেখা যায়, যুক্তরাজ্যে সুইডেনের ফিনডাস কোম্পানির সরবরাহ করা জামাট গরুর গোশতের পুরোটাই (১০০ শতাংশ) ঘোড়ার গোশত ।
এ ঘটনার জেরে ফ্রান্স ও সুইডেনের বাজার থেকে গোশতজাত খাবার সরিয়ে নেয় ফিনডাস।
ফিনডাস এই গোশতগুলো ফরাসি মালিকানাধীন শিল্পগোষ্ঠী কমিজেলের একটি প্রতিষ্ঠান থেকে কিনেছে বলে জানায়। কমিজেলের গোশত প্রক্রিয়াকরণ কারখানাটি আবার লুক্সেমবার্গে অবস্থিত।
লুক্সেমবার্গের কারখানায় গোশত সরবরাহ করে অপর ফরাসি কোম্পানি পৌজল। পৌজলকে এই গোশত সরবরাহ করে নেদারল্যান্ডের গোশত ব্যবসায়ী কোম্পানিগুলো। তারা এসব গোশত রোমানিয়ার কসাইখানা থেকে সংগ্রহ করেছে বলে জানায়।
এভাবে ঘোড়ার গোশত কেলেঙ্কারির সঙ্গে জড়িয়ে পড়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি দেশ।
গত ইয়াওমুল আহাদি (রোববার) ফ্রান্সের ভোক্তাপণ্য সংক্রান্ত উপমন্ত্রী বেনেত হ্যামন এক বিবৃতিতে জানান, ফরাসি কর্মকর্তাদের প্রাথমিক তদন্তে বেরিয়ে এসেছে পৌজল সাইপ্রাসের এক গোশত বিক্রেতা কোম্পানির কাছ থেকে এসব জমাট গোশত ক্রয় করেছিল।
ফিনডাস ও কমিজেলের জমাট গোশতের তৈরি খাদ্যপণ্য ফ্রান্সের সাতটি চেইন শপ থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।
যুক্তরাজ্যসহ ইউরোপে বিক্রি করা প্যাকেটজাত খাদ্যে গরুর গোশতের বদলে ঘোড়ার গোশত ব্যবহার করা হচ্ছে বলে বের হয়ে এসেছে বিস্তারিত তদন্তে।
এতে পুরো ইউরোপ জুড়ে খাদ্য সরবরাহ প্রক্রিয়া নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।
যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, সুইডেন, আয়ারল্যান্ড ও রোমানিয়া ছাড়াও ইউরোপের আরো ১১টি দেশে এই কেলেঙ্কারির প্রভাব পড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।
এদিকে, বৃটেনে সম্প্রতিক গোশত কেলেঙ্কারিতে নতুনভাবে গাধার গোশত যুক্ত হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে।
উল্লেখ্য, ইউরোপীয় কর্তৃপক্ষ গোশত কেলেঙ্কারির জন্য রোমানিয়ার নতুন আইনকে দুষছে। সম্প্রতি রোমানিয়ায় ঘোড়াসহ সকল পশুচালিত যানবাহন নিষিদ্ধ করায় ঐ প্রাণীগুলোকে কসাইখানায় পাঠানো হয় বলে অভিযোগ করেছে ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের কৃষি বিষয়ক কর্মকর্তা জোসে বোভ। ঐ আইনে গাধাও নিষিদ্ধ করা হয়। তাই ঘোড়ার মত গাধার গোশতও ইউরোপের বাজারে ছড়িয়ে পড়ার আশংকা করা হচ্ছে। এজন্য এক শ্রেণীর অসাধু সরবরাহকারীকে দায়ী করছে ইউরোপ।







For the satisfaction of Mamduh Hazrat Murshid Qeebla Mudda Jilluhul Aali
Site designed & developed by Muhammad Shohel Iqbal