al-ihsan.net
mob.al-ihsan.net
বাংলা | English
যামানার লক্ষ্যস্থল ওলীআল্লাহ, যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, ইমামুল আ’ইম্মাহ, মুহ্‌ইস সুন্নাহ্‌, ক্বাইয়্যুমুয্‌ যামান, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে আ’যম,
সুলতানুল ওয়ায়েজীন, গাউছুল আ’যম, সাইয়্যিদুল আউলিয়া, হাবীবুল্লাহ্‌, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদুনা ইমাম রাজারবাগ শরীফের
মামদুহ্‌ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম-এর দৈনিক আল ইহসানে প্রধান শিরোনামে প্রকাশিত ক্বওল শরীফ সমূহ।

  অনুসন্ধান: 
২ অক্টোবর, ২০১৪
মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘তোমাদের মধ্যে যারা কাফির-মুশরিক তথা বিধর্মীদের সাথে মিল-মুহব্বত রাখবে, তারা সেসব কাফির-মুশরিক তথা বিধর্মীদের অন্তর্ভুক্ত হবে।’
সম্মানিত ইসলামী শরীয়ত উনার দৃষ্টিতে কোনো মুসলমান উনাদের জন্যই পূজাকে সমর্থন করা, তাতে শরীক হওয়া ও যাওয়া জায়িয নেই; বরং হারাম ও কুফরীর অন্তর্ভুক্ত।
উল্লেখ্য, দুর্গাপূজার কথা বেদে নেই। তাই ভারতেও দুর্গাপূজা আড়ম্বরের সাথে পালিত হয় না।
স্মরণীয়, যে দুর্গাপূজা ভারতেই জাতীয় ও সার্বজনীন পূজা নয়। তাহলে ৯৭ ভাগ মুসলমান উনাদের দেশে সে পূজাকে জাতীয় ও সার্বজনীন উৎসব কিভাবে বলা যেতে পারে? আর এজন্য জাতীয় ছুটিইবা কিভাবে চাইতে পারে?
তাহলে মুসলমানগণ কি পূজা করবে? নাউযুবিল্লাহ!
মূলত, দুর্গাপূজা হচ্ছে সংখ্যালঘুদের একটা বিতর্কিত ও অংশত শ্রেণীর পূজা মাত্র। আর বাঙালি হিন্দুর দুর্গাপূজা শুরুই হয়েছে ঈসায়ী ষোড়শ শতাব্দী থেকে।
প্রকৃতপক্ষে হিন্দুরা বাংলাদেশে দুর্গাপূজার নামে চরম অশ্লীলতা ছড়াচ্ছে ও এটাকে সার্বজনীন করতে মুসলমান তোষণ চালাচ্ছে।



১ অক্টোবর, ২০১৪
মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘যাদের পথ ও পবিত্র ঈমান-আমল উনার নিরাপত্তা ও আর্থিক সঙ্গতি রয়েছে তাদের উপর মহান আল্লাহ পাক উনার জন্য পবিত্র হজ্জ সম্পাদন করা ফরয।’
নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘হে মানুষেরা!
তোমাদের উপর পবিত্র হজ্জ ফরয করা হয়েছে। সুতরাং তোমরা পবিত্র হজ্জ আদায় করো।’
সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার দৃষ্টিতে পবিত্র হজ্জ একটি বুনিয়াদী ফরয ইবাদত।
পবিত্র হজ্জ উনার বিরোধিতা করা কাট্টা কুফরী।
পবিত্র হজ্জ এবং নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বিরুদ্ধে কটু মন্তব্য করে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী লতিফ সিদ্দিকী মুরতাদ হয়ে গেছে।
যদি সে ৩ (তিন) দিনের মধ্যে তওবা না করে, তবে সম্মানিত ইসলামী শরীয়ত উনার দৃষ্টিতে তার একমাত্র শাস্তি হচ্ছে মৃত্যুদন্ড।
৯৭ ভাগ মুসলমান ও রাষ্ট্রদ্বীন ইসলাম উনার দেশের সরকারের জন্য ফরয হচ্ছে- অতি শীঘ্রই উক্ত মুরতাদ মন্ত্রীকে বহিষ্কার করা, গ্রেফতার করা এবং সম্মানিত শরীয়ত অনুযায়ী শাস্তির ব্যবস্থা করা।



৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘(হে আমার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম!) আপনি বলুন, মহান আল্লাহ পাক উনার ফযল ও রহমত মুবারক অর্থাৎ আমাকে পাওয়ার কারণে তোমাদের উচিত ঈদ বা খুশি প্রকাশ করা।’ সুবহানাল্লাহ!
অর্থাৎ যেদিন আখিরী রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি যমীনে মুবারক তাশরীফ আনেন, সেই মহাসম্মানিত, মহামর্যাদাবান, সুমহান, অশেষ বরকতময় ও বেমেছাল ফযীলতপূর্ণ মহাপবিত্র ১২ই রবীউল আউওয়াল শরীফই হচ্ছেন- কুল-কায়িনাতের জন্য সর্বশ্রেষ্ঠ ঈদ উনার দিন। সুবহানাল্লাহ!
তাই সেই মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র দিন উনার নামকরণ করা হয়েছে সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ, সাইয়্যিদে ঈদে আ’যম, সাইয়্যিদে ঈদে আকবর পবিত্র ঈদে মীলাদুন নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। সুবহানাল্লাহ!
যা আসতে আর মাত্র ৯৫ দিন বাকি।
আর এ কারণেই পবিত্র রবীউল আউওয়াল শরীফই হচ্ছেন- সাইয়্যিদুল আসইয়াদ, সাইয়্যিদুশ শুহূর, শাহরুল আ’যম। সুবহানাল্লাহ!
অতএব, সেই মহাসম্মানিত দিন উনাকে তা’যীম-তাকরীম ও মুহব্বত এর সাথে পালন করাও ফরয এবং ইহকাল ও পরকাল উভয়কালের জন্যই নাজাত লাভের কারণ। সুবহানাল্লাহ!



২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘তোমরা নেক কাজে ও পরহেজগারীতে পরস্পর পরস্পরকে সাহায্য করো। বদ কাজে অর্থাৎ পাপে ও শত্রুতায় পরস্পর পরস্পরকে সাহায্য করো না।’
পবিত্র ঈদে অসচ্ছল মুসলমান উনাদেরকে সাহায্য না করে শতকরা মাত্র ২ ভাগ হিন্দুদেরকে পূজায় সাহায্য করাটা কখনো সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার সম্মত নয়।
পবিত্র ঈদ হচ্ছেন অত্যন্ত সম্মানিত ও তাক্বওয়া সম্পন্ন নেক আমল।
আর শতকরা ২ ভাগ হিন্দুর পূজা হচ্ছে অত্যন্ত নোংরামীপূর্ণ কাজ; যা নাপাক স্থানের মাটি ব্যতীত সম্পন্ন হয় না। অতএব, ৯৭ ভাগ মুসলমান অধ্যুষিত দেশে এই অপবিত্র পূজা কখনোই সার্বজনীন হতে পারে না।
কাজেই বাংলাদেশের শতকরা ৯৭ ভাগ অধিবাসী মুসলমান উনারা এটা কখনোই মেনে নিতে পারে না।
উল্লেখ্য, ভারতে হিন্দু-মুশরিকরা শতকরা ৪০ ভাগ মুসলমান উনাদের অস্তিত্ব ও আধিপত্য অস্বীকার করে থাকে। অথচ বাংলাদেশে মাত্র শতকরা ২ ভাগ হিন্দুরা পূজার নামে তাদের আধিপত্য বিস্তার ও প্রমাণ করতে চায়।
আর তথাকথিত শারদীয় দুর্গাপূজার সাথে ‘সার্বজনীন’ শব্দ যোগ করে প্রকৃতপক্ষে মুসলমান ও রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম উনার অস্তিত্ব অস্বীকার করতে চায়।
রাষ্ট্রধর্ম সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার এদেশে শতকরা প্রায় ৯৭ ভাগ অধিবাসী মুসলমান উনাদেরই প্রাধান্য ও আধিপত্য বজায় রাখা সম্মানিত ইসলামী শরীয়ত উনার হুকুম। এছাড়া সাংবিধানিকও বটে।



২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
পবিত্র দ্বীন ইসলাম, মুসলমান ও বাংলাদেশের সার্বভৌমত্বের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের জাল বিস্তারকারী বিতর্কিত ‘সিএইচটি কমিশন’কে অবিলম্বে নিষিদ্ধ করতে সরকারকে দ্রুত ও সক্রিয় পদক্ষেপ নিতে হবে।
কেননা ‘সিএইচটি’র সদস্যরা বিদেশী অর্থায়নে ও ষড়যন্ত্রে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের বিরোধিতা করে পার্বত্য চট্টগ্রামকে বিচ্ছিন্ন করতে উপজাতিদের পক্ষ নিয়ে আন্তর্জাতিকভাবে সম্পূর্ণ মিথ্যা প্রপাগান্ডা চালাচ্ছে।
এ সম্পর্কে সেনাবাহিনী সিএইচটি’র দুরভিসন্ধি উদঘাটন ও ব্যক্ত করলেও সরকারের কর্মকর্তারা শুধু সাধারণ সমালোচনা করেই ক্ষান্ত।
অতএব, সরকারের দায়িত্ব ও কর্তব্য হলো-
‘সিএইচটি’ অর্থ কোথায় পায় আর এখানে কী কার্যক্রম করছে তা দেখা এবং বাংলাদেশকে পূর্ব-তিমুর ও দক্ষিণ সুদানের মতো ষড়যন্ত্রের শিকার হওয়া থেকে রক্ষার পদক্ষেপ গ্রহণ করা।





      [(২৫৪১ - ২৫৩৭) ২৫৪১]   অপেক্ষাকৃত পুরাতন ›   একেবারে পুরাতন » 





সম্পাদক: আল্লামা মুহম্মদ মাহবুব আলম
অফিস: ৫, আউটার সারকুলার রোড, রাজারবাগ, ঢাকা -১২১৭, বাংলাদেশ।
ফোন: +৮৮-০১৭১৬৮৮১৫৫১, +৮৮-০২-৮৩১৭০১৯, ৮৩১৪৮৪৮, ৮৩১৬৯৫৮; ফ্যাক্স: ৯৩৩৮৭৮৮
ই-মেইল: editor@al-ihsan.net, dailyalihsan@gmail.com

For the satisfaction of Mamduh Hazrat Murshid Qeebla Mudda Jilluhul Aali
Site designed & developed by Muhammad Shohel Iqbal