al-ihsan.net
mob.al-ihsan.net
বাংলা | English
যামানার লক্ষ্যস্থল ওলীআল্লাহ, যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, ইমামুল আ’ইম্মাহ, মুহ্‌ইস সুন্নাহ্‌, ক্বাইয়্যুমুয্‌ যামান, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে আ’যম,
সুলতানুল ওয়ায়েজীন, গাউছুল আ’যম, সাইয়্যিদুল আউলিয়া, হাবীবুল্লাহ্‌, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদুনা ইমাম রাজারবাগ শরীফের
মামদুহ্‌ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম-এর দৈনিক আল ইহসানে প্রধান শিরোনামে প্রকাশিত ক্বওল শরীফ সমূহ।

  অনুসন্ধান: 
২৫ আগস্ট, ২০১৬
উম্মুল মু’মিনীন হযরত ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম তিনি বলেন- ‘নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের পক্ষ থেকে গরু কুরবানী করেছেন।’ সুবহানাল্লাহ!

মুসলমান উনাদের জন্য গরু কুরবানী করা ও গরুর গোশত খাওয়া খাছ সুন্নত মুবারক।

অথচ গো-পূজারী কাফির-মুশরিকদের খুদকুড়া দ্বারা লালিত পালিত এক শ্রেণীর কর্মকর্তাদের প্রচ্ছন্ন সহযোগিতায় মিডিয়ার মাধ্যমে করা হচ্ছে গরু কুরবানী ও গরুর গোশত বিরোধী অপপ্রচারণা। নাউযুবিল্লাহ!

সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার বিদ্বেষী ভারতের গো-রক্ষা আন্দোলনকারী এদেশীয় দালালদের স্পর্ধা শতকরা ৯৮ ভাগ মুসলমান উনাদের সহ্যের সীমা অতিক্রম করেছে।

অতএব, গরু কুরবানী বিরোধী কোনো প্রচারণা, পদক্ষেপ ও ষড়যন্ত্র এদেশের শতকরা ৯৮ ভাগ মুসলমান উনারা কখনোই বরদাশত করবেন না।



২৪ আগস্ট, ২০১৬
মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘তোমাদেরকে যা আদেশ মুবারক করা হয়েছে তার উপর ইস্তিক্বামত থাকো।’

সম্মানিত ইসলামী শরীয়ত উনার নির্দেশ মুবারক হচ্ছে- সামর্থ্যবান প্রত্যেকের পক্ষ থেকেই পবিত্র কুরবানী করতে হবে। অর্থাৎ সামর্থ্যবান প্রত্যেকের জন্যই পবিত্র কুরবানী করা ওয়াজিব।

পবিত্র ওয়াজিব কুরবানী না করে পবিত্র কুরবানী উনার পশু বা সমপরিমাণ নগদ টাকা কৃষকদের মাঝে অথবা বন্যা, মহামারি ও ঘূর্ণিঝড় ইত্যাদি দুর্ঘটনায় আক্রান্ত বা দুঃস্থদেরকে দেয়া বা দিতে বলা সুস্পষ্ট নাজায়িয, হারাম ও কুফরী।

কারণ, তাতে সম্মানিত ইসলামী শরীয়ত উনার বিধান পরিবর্তন করা হচ্ছে। যার কারণে পবিত্র কুরবানী সংক্রান্ত নতুন শরীয়ত জারি করে কাদিয়ানীর ন্যায় কাট্টা কাফির ও চির জাহান্নামী হয়েছে এবং হচ্ছে। নাউযুবিল্লাহি মিন যালিক!

কাজেই এরূপ কুফরী বক্তব্য ও হারাম আমল থেকে বিরত থাকা সকলের জন্যই ফরয।



২৩ আগস্ট, ২০১৬
মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “তোমাদের যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার আদেশ মুবারক উনার উপর দৃঢ় থাকো আর গুনাহগার ও কাফিরদের অনুসরণ করো না। ”

৯৮ ভাগ মুসলমান ও রাষ্ট্রদ্বীন ইসলাম উনার দেশের সরকারি ও বেসরকারি কর্মকর্তারা ইহুদী, মুশরিক, নাছারা অর্থাৎ বেদ্বীন-বদদ্বীনদের সুস্পষ্ট প্ররোচনায় ও উস্কানিতেই মুসলমান উনাদের ওয়াজিব ইবাদত পবিত্র কুরবানী নিয়ে ষড়যন্ত্রে মেতে উঠেছে। নাউজুবিল্লাহ!

তাহলো পবিত্র কুরবানী উনার বিরোধী একটি মহল অপপ্রচার করছে যে-

‘পবিত্র কুরবানী উনার পশুর হাটের কারণে যানজট সৃষ্টি হয়’। নাউজুবিল্লাহ! এটা সম্পূর্ণ কাট্টা মিথ্যা কথা। কারণ সারা বছর তো আর গরুর হাট থাকে না, তবে সারা বছর কেন ঢাকা শহরে অসহনীয় যানজট লেগে থাকে? প্রকৃতপক্ষে এই মিথ্যা প্রোপাগান্ডা করে পশুর হাটগুলোকে ঢাকা শহরের বাইরে নিতে চায়। নাউজুবিল্লাহ!

তাহলে মুসলমানগণ কি এটাই বুঝবে যে- সরকারি কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশে পবিত্র কুরবানী বন্ধ করে দিতে চায়!

অতএব, সরকারের জন্য উচিত হয়নি- পবিত্র কুরবানী উনার বিদ্বেষী মহলের এ ধরনের মিথ্যা প্রোপাগান্ডায় বিভ্রান্ত হয়ে পবিত্র কুরবানীর পশুর হাটকে ঢাকার বাইরে নিয়ে যাওয়া, বরং উচিত ছিল এবং উচিত হবে হাটের সংখ্যা বৃদ্ধি করে শহরের প্রত্যেক এলাকায় এলাকায় পবিত্র কুরবানীর পশু হাটের ব্যবস্থা করে দেয়া।



২২ আগস্ট, ২০১৬
নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘যে ব্যক্তি পবিত্র হজ্জ করলো অথচ আমার পবিত্র রওযা শরীফ যিয়ারত করলো না, সে আমার সাথে বেয়াদবী করলো।’ নাউযুবিল্লাহ!

সম্মানিত শরীয়ত উনার দৃষ্টিতে যাদের উপর হজ্জ ফরয অথবা যারা সম্মানিত শরীয়তসম্মতভাবে অর্থাৎ ছবি না তুলে, বেপর্দা না হয়ে পবিত্র হজ্জ করতে যাবেন তাদেরকে অবশ্যই প্রথমেই পবিত্র রওযা শরীফ যিয়ারত করতে হবে।

পবিত্র রওযা শরীফ যিয়ারত করা পবিত্র ঈমান হিফাযত ও পবিত্র হজ্জ কবুল হওয়ার কারণ। সুবহানাল্লাহ!

যারা বলে ‘পবিত্র হজ্জ উনার সাথে পবিত্র রওযা শরীফ যিয়ারত উনার কোনো সম্পর্ক নেই’ নাঊযুবিল্লাহ! নাঊযুবিল্লাহ! নাঊযুবিল্লাহ! বা ‘পবিত্র রওযা শরীফ যিয়ারত করা বিদয়াত-শিরক’ নাঊযুবিল্লাহ! নাঊযুবিল্লাহ! নাঊযুবিল্লাহ! তারা চরম গুমরাহ ও ৭২ বাতিল ফিরক্বার অন্তর্ভুক্ত।



২১ আগস্ট, ২০১৬
নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “যে ব্যক্তি হক্ব কথা বলা থেকে চুপ থাকে বা অন্যায়ের প্রতিবাদ করে না, সে বোবা শয়তান।’

রাজধানীতে গত বছর পবিত্র কুরবানীর পশুর হাট কমিয়ে দেয়া হয়েছে। হাটগুলো সরিয়ে ঢাকার বাইরে দুর্গমস্থানে নিয়ে গেছে। পবিত্র কুরবানীর পশু যবেহের ক্ষেত্রে স্থান ও বয়স নির্ধারণ করে দিচ্ছে। যা পবিত্র কুরবানীর বিরুদ্ধে একটি সূক্ষ্ম ষড়যন্ত্র। নাউযুবিল্লাহ!

আশ্চর্যের বিষয় হচ্ছে- এদেশের ছূফী, দরবেশ, আলিম-উলামা, শাইখুল হাদীছ, শাইখুত তাফসীর, মুফতী, মুহাদ্দিছ, মাওলানা, মৌলবী, ইমাম, খতীব, ইসলামী দলের আমীর অর্থাৎ আম-খাছ কেউই এ ব্যাপারে টু-শব্দও করছে না। নাউযুবিল্লাহ!

৯৮ ভাগ মুসলমান উনাদের জন্য ফরয-ওয়াজিব হচ্ছে সমস্বরে ও ঐক্যবদ্ধভাবে পবিত্র কুরবানী উনার বিরোধী উল্লেখিত বিষয়ে তীব্র প্রতিবাদ করা।

তবে অবশ্যই সরকার পবিত্র কুরবানী উনার বিরোধী সমস্ত আইন বাতিল করতে বাধ্য হবে। শুধু তাই নয়, বরং সর্বপ্রকার ইসলামবিরোধী কাজ বন্ধ করতেও বাধ্য হবে এবং ভবিষ্যতেও করার সাহস করবে না।

অতএব, ৯৮ ভাগ মুসলমান উনাদের জন্য ফরয হচ্ছে- পবিত্র কুরবানীসহ সর্বপ্রকার ইসলামবিরোধী কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধভাবে তীব্র প্রতিবাদ করা।





      [(৩১৯৩ - ৩১৮৯) ৩১৯৩]   অপেক্ষাকৃত পুরাতন ›   একেবারে পুরাতন » 





সম্পাদক: আল্লামা মুহম্মদ মাহবুব আলম
অফিস: ৫, আউটার সারকুলার রোড, রাজারবাগ, ঢাকা -১২১৭, বাংলাদেশ।
ফোন: +৮৮-০১৭১৬৮৮১৫৫১, +৮৮-০২-৮৩১৭০১৯, ৮৩১৪৮৪৮, ৮৩১৬৯৫৮; ফ্যাক্স: ৯৩৩৮৭৮৮
ই-মেইল: editor@al-ihsan.net, dailyalihsan@gmail.com

For the satisfaction of Mamduh Hazrat Murshid Qeebla Mudda Jilluhul Aali
Site designed & developed by Muhammad Shohel Iqbal