al-ihsan.net
mob.al-ihsan.net
বাংলা | English
যামানার লক্ষ্যস্থল ওলীআল্লাহ, যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, ইমামুল আ’ইম্মাহ, মুহ্‌ইস সুন্নাহ্‌, ক্বাইয়্যুমুয্‌ যামান, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে আ’যম,
সুলতানুল ওয়ায়েজীন, গাউছুল আ’যম, সাইয়্যিদুল আউলিয়া, হাবীবুল্লাহ্‌, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদুনা ইমাম রাজারবাগ শরীফের
মামদুহ্‌ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম-এর দৈনিক আল ইহসানে প্রধান শিরোনামে প্রকাশিত ক্বওল শরীফ সমূহ।

  অনুসন্ধান: 
২৪ এপ্রিল, ২০১৪
পবিত্র কুরআন শরীফ উনার ২নং পবিত্র সূরা শরীফ উনার ১৮৯নং পবিত্র আয়াত শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “চাঁদ হচ্ছে সময় নিরূপণকারী মানুষের (বিভিন্ন মাসে ইবাদত-বন্দেগীর) জন্য এবং পবিত্র হজ্জ উনার জন্য।”
নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘চাঁদ দেখে আরবী মাস শুরু করো, ঊনত্রিশ তারিখে চাঁদ দেখা না গেলে মাস ত্রিশ দিন পূর্ণ করো।’
প্রতিটি আরবী মাস চাঁদ দেখে সঠিক তারিখে শুরু করা ফরয এবং চাঁদ তালাশ করা ওয়াজিবে কিফায়া।
যারা বলে থাকে- ‘শুধু পবিত্র রমাদ্বান শরীফ মাস শুরু করতে হবে চাঁদ দেখে। কেননা চাঁদ দেখা সংক্রান্ত পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে পবিত্র রমাদ্বান শরীফ মাস শুরু করার কথা উল্লেখ রয়েছে’- তারা প্রকৃতপক্ষে আশাদ্দুদ্ দরজার জাহিল।
সম্মানিত ইসলামী শরীয়ত উনার বিষয়ে এদের সামান্যতম ইলমও নেই।



২৩ এপ্রিল, ২০১৪
নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘হযরত আবূ বকর ছিদ্দীক্ব আলাইহিস সালাম উনার মুহব্বতই হচ্ছে ঈমান।’
আজ সুমহান ঐতিহাসিক বরকতময় পবিত্র ২২শে জুমাদাল ঊখরা শরীফ-
আফদ্বালুন নাস বা’দাল আম্বিয়া, খলীফাতু রসূলিল্লাহ, হযরত ছিদ্দীক্বে আকবর আলাইহিস সালাম উনার পবিত্র বিছাল শরীফ উনার বরকতময় দিন।
সারাবিশ্বের মুসলিম উম্মতের জন্য ফরয হচ্ছে- উনার সম্মানার্থে এ বরকতপূর্ণ দিনে পবিত্র ওয়াজ শরীফ, পবিত্র মীলাদ শরীফ ও পবিত্র ক্বিয়াম শরীফ এবং দোয়ার মাহফিলের আয়োজন করে উনার যথাযথ ছানা-ছিফত মুবারক বর্ণনা করা।

আর সরকারের জন্যও ফরয ছিলো- মাসব্যাপী মাহফিলসমূহের সার্বিক আনজাম দেয়ার সাথে সাথে উনার পবিত্র জীবনী মুবারক সমস্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সিলেবাসে অন্তর্ভুক্ত করা এবং উনার পবিত্র বিছাল শরীফ দিবসে সরকারি ছুটি ঘোষণা করা।
কিন্তু দুঃখজনক বিষয় হচ্ছে- বহুবার নছীহত করার পরও ৯৭ ভাগ মুসলমান ও রাষ্ট্রদ্বীন পবিত্র ইসলাম উনার দেশের সরকার এখনো পর্যন্ত এ ব্যাপারে কোনো পদক্ষেপই গ্রহণ করেনি। সরকারের উচিত অতিসত্বর এ বিষয়ে পদক্ষেপ গ্রহণ করা।



২২ এপ্রিল, ২০১৪
মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘যে ব্যক্তি পবিত্র দ্বীন ইসলাম ভিন্ন অন্য কোনো ধর্ম তালাশ বা গ্রহণ করবে তার কাছ থেকে তা কখনোই কবুল করা হবে না।’
দ্বীনে ইলাহীর প্রবর্তক বাদশাহ আকবর পবিত্র হিজরী সন উনার বিরোধিতা করেই ফসলী সন রচনা করে।
সুতরাং ফসলী সন মুসলমান উনাদের কাছে কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয় এবং কোনোভাবেই অনুসরণীয়ও নয়।
আর যারা ফসলী সনকে বাংলা সন হিসেবে গ্রহণ করেছে এবং প্রচারণা চালাচ্ছে তারা চরম স্তরের মূর্খ ও অজ্ঞ।
অতএব, মুসলমান উনাদের জন্য পবিত্র হিজরী সন সর্বত্র চালু করা ফরয।

কারণ সম্মানিত ইসলামী শরীয়ত উনার সমস্ত আমলগুলিই পবিত্র হিজরী সন অর্থাৎ চাঁদের তারিখের সাথে সম্পৃক্ত।
উল্লেখ্য যে, ক্যালেন্ডার ও খবরের কাগজগুলোতে আরবী সন উনার উল্লেখ থাকলেও মানুষের দৈনন্দিন চর্চাতে তা অনুপস্থিত, যা সত্যি মুসলমান উনাদের জন্য লজ্জার বিষয়।



২১ এপ্রিল, ২০১৪
নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘বিদ্বয়াতুম মিন্নি সাইয়্যিদাতুনা হযরত ফাতিমাতুয যাহরা আলাইহাস সালাম তিনি সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন।’
আজ সুমহান ঐতিহাসিক বরকতময় ২০শে জুমাদাল উখরা শরীফ।
সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, উম্মু আবীহা সাইয়্যিদাতুনা হযরত ফাতিমাতুয যাহরা আলাইহাস সালাম উনার পবিত্র বিলাদত শরীফ দিবস।

সারাবিশ্বের মুসলিম উম্মতের জন্য দায়িত্ব ও কর্তব্য হচ্ছে- উনার সম্মানার্থে আলোচনা অর্থাৎ ওয়াজ শরীফ, পবিত্র মীলাদ শরীফ ও পবিত্র ক্বিয়াম শরীফ এবং দোয়ার মাহফিলের আয়োজন করা।
আর সরকারের জন্যও দায়িত্ব এবং কর্তব্য ছিলো- মাসব্যাপী মাহফিলসমূহের সার্বিক আনজাম দেয়ার সাথে সাথে উনার পবিত্র জীবনী মুবারক সমস্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সিলেবাসে অন্তর্ভুক্ত করা এবং উনার পবিত্র বিলাদত শরীফ দিবসে অবশ্যই সরকারি ছুটি ঘোষণা করা।
যাতে মুসলমান উনার সম্পর্কে জেনে উনাকে মুহব্বত, তা’যীম-তাকরীম ও অনুসরণ-অনুকরণ করে মহান আল্লাহ পাক উনার ও উনার রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের হাক্বীক্বী সন্তুষ্টি মুবারক হাছিল করে ইহকাল ও পরকালে কামিয়াবী হাছিল করতে পারেন।



২০ এপ্রিল, ২০১৪
নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘হযরত নবী ও রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদের পর সর্বশ্রেষ্ঠ মর্যাদার অধিকারী হচ্ছেন- হযরত আবূ বকর ছিদ্দীক্ব আলাইহিস সালাম।’
হযরত ছিদ্দীক্বে আকবর আলাইহিস সালাম তিনি পবিত্র জুমাদাল উখরা শরীফ মাস উনার ২২ তারিখ পবিত্র বিছাল শরীফ গ্রহণ করেন।
অর্থাৎ এ বছরের জন্য ২২শে জুমাদাল উখরা শরীফ হচ্ছে; ২৩ হাদি আশার-১৩৮১ শামসী সন, ২৩ এপ্রিল-২০১৪ ঈসায়ী সন, ইয়াওমুল আরবিয়া বা বুধবার।

তাই সকলের জন্য ফরয হচ্ছে, উনাকে যথাযথ মুহব্বত করা ও পরিপূর্ণ অনুসরণ-অনুকরণ করা এবং সর্বত্র উনার বেশি বেশি আলোচনা করা।
আর সরকারের জন্য ফরয হচ্ছে- বাংলাদেশের সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সিলেবাসের পাঠ্যপুস্তকে উনার পবিত্র জীবনী মুবারক অন্তর্ভুক্ত করা।
পাশাপাশি উনার পবিত্র বিছাল শরীফ উপলক্ষে মাসব্যাপী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা এবং ২২শে জুমাদাল উখরা শরীফ উপলক্ষে সরকারিভাবে ছুটি ঘোষণা করা।





      [(২৩৮৭ - ২৩৮৩) ২৩৮৭]   অপেক্ষাকৃত পুরাতন ›   একেবারে পুরাতন » 





সম্পাদক: আল্লামা মুহম্মদ মাহবুব আলম
অফিস: ৫, আউটার সারকুলার রোড, রাজারবাগ, ঢাকা -১২১৭, বাংলাদেশ।
ফোন: +৮৮-০১৭১৬৮৮১৫৫১, +৮৮-০২-৮৩১৭০১৯, ৮৩১৪৮৪৮, ৮৩১৬৯৫৮; ফ্যাক্স: ৯৩৩৮৭৮৮
ই-মেইল: editor@al-ihsan.net, dailyalihsan@gmail.com

For the satisfaction of Mamduh Hazrat Murshid Qeebla Mudda Jilluhul Aali
Site designed & developed by Muhammad Shohel Iqbal