অনুগ্রহ করে অপেক্ষা করুন...
 

যামানার লক্ষ্যস্থল ওলীআল্লাহ, যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, ইমামুল আ’ইম্মাহ, মুহইস সুন্নাহ, ক্বাইয়্যুমুয্ যামান, কুতুবুল আলম, হুজ্জাতুল ইসলাম, সুলত্বানুল আউলিয়া ওয়াল মাশায়িখ, ছাহিবু সুলত্বানিন নাছীর,
মাহিউল বিদয়াহ, রসূলে নুমা, গাউছুল আ’যম, সাইয়্যিদুল আউলিয়া, ইমামুল উমাম, সাইয়্যিদুল খুলাফা, আস সাফফাহ, হাবীবুল্লাহ্, আওলাদে রসূল, রাজারবাগ শরীফ-এর মুর্শিদ ক্বিবলাহ
The Daily Al Ihsan
বিশ্বের সমস্ত দেশ থেকে পঠিত আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাত এর
আক্বীদায় প্রতিষ্ঠিত একমাত্র আন্তর্জাতিক ইসলামী পত্রিকা
Arabic .  বাংলা .  Urdu .  English .  Japanese .  Swedish
২২ মাহে যিলক্বদ, ১৪৩৫ হিজরী, ২০ রবি’, ১৩৮২ শামসি
১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৪ ঈসায়ী সন, ৩ আশ্বিন, ১৪২১ ফসলী সন
ইয়াওমুল খামীস (বৃহস্পতিবার)
al-ihsan al-ihsan al-ihsan
al-ihsan
মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম উনার দোয়ার বরকতে মুসলমানদেরকে জুলুম নির্যাতন করার ফলে জুলুমবাজ কাফিরদের উপর খোদায়ী গজব
  • <font class='SlideCaptionBN'>মেক্সিকোতে শক্তিশালী হারিকেন ওডিলের আঘাতে হানায় ধ্বংসস্তুপে পরিণত হয়েছে বাজা ক্যালিফোর্নিয়া। </font>
  • <font class='SlideCaptionBN'>তবে দেশটির সরকারের পক্ষ থেকে এ ভয়ঙ্কর দুর্যোগে </font>
  • <font class='SlideCaptionBN'>হতাহতের কোন খবর প্রকাশ করা হয়নি।</font>
Al Baiyinaat : e Version Al Ihsan : e Version
সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ উপলক্ষে প্রকাশিত
পোষ্টার, স্ক্রিনসেভার, ওয়ালপেপার সমুহ ডাউনলোড করুন।
বিশ্বের সমস্ত দেশ ও শহর থেকে পঠিত
ইসলামী শরীয়ত সম্মত একমাত্র পত্রিকা
"দৈনিক আল ইহসান"

বিজ্ঞাপনের মুল্য তালিকা
নামাজের সময়সূচী
জেলা : ঢাকা ও পার্শ্ববর্তী এলাকা
ওয়াক্তশুরুশেষ
সাহ্‌রীর শেষ সময়০৪:২৬
ফজর০৪:৩১০৫:৪৩
ইশরাক০৬:০৭০৭:২৬
চাশত্‌০৭:২৭১০:৫৩
জাওয়াল১১:৫৪যোহর নামায পড়ার পূর্ব পর্যন্ত
যোহর১১:৫৪০৪:১৮
আছর০৪:১৯০৫:৪৩
মাগরিব০৬:০৬০৭:১৬
আওয়াবীনবাদ মাগরিব০৭:১৬
ইশা০৭:১৭০৪:২৬
তাহাজ্জুদ১১:১৬০৪:২৬
আগামীকাল ফজর০৪:৩১০৫:৪৪
আগামীকাল সূর্যোদয়০৫:৪৫-
আজ সূর্যোদয়০৫:৪৪-
আজ সূর্যাস্ত০৬:০১-
সূত্র: গবেষণা কেন্দ্র- মুহম্মদিয়া জামিয়া শরীফ, ঢাকা

 
Saieedul Aaiyad
Saieedul Aaiyad
Saieedul Aaiyad
RajarbagShareef.net
Radio 'Al-Hikmah'
Special Days in Islam
majlisu-ruiatil-hilal
International Voice Room
Noorun Alaa Noor
Donate for Daily Al Ihsan Shareef Donate for Daily Al Ihsan Shareef


» কোরআন শরীফের তরজমা ও তাফছির(তরজমায়ে মুজাদ্দিদে আজম)
» ফিক্বহুল হাদিস ওয়াল আছার
» আহ্‌লে সুন্নাত ওয়াল জামাতের আক্বীদা
» মারিফাতুছ ছাহাবা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম
» আউলীয়া-ই-কিরাম রহমতুল্লাহী আলাইহিম
 
» আত-তাক্বউইমুশ শামসি
» ইসলামের বিশেষ দিন সমূহ
» আহ্‌কামু রমাদ্বানাল মুবারক
» আহ্‌কামুয্‌যাকাত
(যাকাতের হুকুম-আহ্‌কাম)
» বিষয় ভিত্তিক বিশেষ প্রবন্ধ
 
» মাসিক আল বাইয়্যিনাত
» ওয়াজ শরীফ
» ক্বাছীদা আনজুমান
» মক্ববুল মুনাজাত শরীফ
» প্রকাশিত কিতাব সমূহ
 
» ফতওয়া বিভাগ
» সুওয়াল জাওয়াব বিভাগ
» মাসের ফজিলত ও প্রাসঙ্গিক আলোচনা
 
» পত্রিকার মূল সংস্করণ
 
» আপনার মতামত পাঠান
» আর্কাইভ থেকে পড়ুন
 
» সুন্নতি সামগ্রী
» কবিতা
» সবুজ বাংলা ব্লগ

 
মুজাদ্দিদে আ’যম হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম-উনার ক্বওল শরীফ
মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ পাক উনার নিকট একমাত্র মনোনীত দ্বীন হচ্ছে ইসলাম।’
বাংলাদেশের শতকরা ৯৭ ভাগ অধিবাসী মুসলমান আর রাষ্ট্রদ্বীন হচ্ছে পবিত্র দ্বীন ইসলাম।
অথচ বাংলাদেশে পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনাকে প্রাধান্য দেয়ার বিষয়টি সর্বক্ষেত্রে উপেক্ষিত। সরকারি ছুটির বেলাতেও একই চিত্র দেখা যায়।
হিন্দুদের জন্মাষ্টমী ও দুর্গাপূজার ছুটি ঐচ্ছিক করে এবং ইহুদীদের বিশেষ দিন শনিবারের সরকারি ছুটি বাতিল করে মুসলমান উনাদের বিশেষ ও পবিত্র দিন ইয়াওমুল ইছনাইনিল আযীম বা সোমবার শরীফ সরকারি ছুটি ঘোষণা করা সরকারের বিশেষ দায়িত্ব ও কর্তব্য।
পাশাপাশি পবিত্র ঈদে মীলাদুন নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উপলক্ষে কমপক্ষে ত্রিশ দিন, পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে কমপক্ষে সাত দিন, পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে কমপক্ষে দশ দিন এবং অন্যান্য ইসলামিক পর্বগুলোতেও প্রয়োজন মাফিক বাধ্যতামূলক সরকারি ছুটি দেয়াও সরকারের বিশেষ দায়িত্ব ও কর্তব্যের অন্তর্ভুক্ত।
পক্ষান্তরে মুসলমান উনাদের বর্তমান ধর্মীয় ছুটির অনুপাতে যবন, ম্লেচ্ছ, অস্পৃশ্য হিন্দুরা মাত্র ০.৩৩ দিন এবং বৌদ্ধ, খ্রিস্টান ও উপজাতি মিলে মাত্র ০.১৭ দিন ছুটি পেতে পারে।
আপনাদের মতামত
মুজাদ্দিদে আ’যম সাইয়্যিদুনা ইমাম রাজারবাগ শরীফ উনার মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার মকবুল মুনাজাত শরীফ উনার বেমেছাল রূহানীয়ত সমৃদ্ধ রোব মুবারক উনার ফলেই খোদায়ী গযবে পর্যুদস্ত বিশ্বের সকল কাফির-মুশরিকদের দেশ
প্রসঙ্গ: বাল্যবিবাহ বিরোধী আইন কি ব্যভিচারে উৎসাহ দেয়া নয়?
হিন্দু মহাজোটের অযৌক্তিক দাবি করার পিছনে রহস্য উদঘাটন করা হোক
প্রসঙ্গ : দেইল্যা রাজাকারের রায় ॥
ক্ষমতার পালাবদলে দেইল্যা রাজাকার যে অনায়াসে কারাগার থেকে
বের হয়ে আসবে না, সেটা কি বর্তমান সরকার বলে দিতে পারবে?
যদি সেটা না পারে, তাহলে বর্তমান সরকারের অবস্থা সেই সময় কতটা ভয়াবহ হবে-
সেটা এখন থেকেই চিন্তা-ফিকির করা উচিত।
বাংলাদেশের জনগণ জানতে চায়-
সরকার কত টাকার বিনিময়ে দেইল্যা রাজাকারকে ফাঁসি থেকে বাঁচিয়েছে?
সম্পাদকীয়
সব প্রশংসা মহান আল্লাহ পাক উনার জন্য। সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার প্রতি অফুরন্ত দুরূদ শরীফ ও সালাম মুবারক।
দুর্নীতি ও অনিয়ম বন্ধে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলো পরিচালনার দায়িত্ব ন্যস্ত করা হয়েছিল পরিচালনা পর্ষদের হাতে। দেয়া হয়েছিল অসীম ক্ষমতা। বলা হয়েছিল, প্রতিষ্ঠানগুলোতে সুশাসন কায়িম করা, দক্ষ ব্যবস্থাপনা গড়ে তোলা আর আর্থিক কাঠামো শক্তিশালী করাই হবে তাদের কাজ। কিন্তু ব্যাংক পরিচালনায় সীমাহীন ক্ষমতা পেয়ে সরকার নিয়োজিত পরিচালকরা শুরু করলো মহাদুর্নীতি।
দুর্নীতি ও অনিয়মের হাত থেকে রাষ্ট্রায়ত্ত বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে রক্ষা করতে সরকার সোনালী, জনতা ও অগ্রণী ব্যাংককে একযোগে কর্পোরেটাইজড করার সিদ্ধান্ত নেয়। কিন্তু বাস্তবে কর্পোরেটাইজড হওয়ার আগে যেখানে রাষ্ট্রীয় ব্যাংকের দুর্নীতি সীমিত ছিল লাখ থেকে কোটি টাকার অঙ্কে, এখন তা শত কোটি থেকে হাজার হাজার কোটি টাকায় উন্নীত হয়েছে। হলমার্ক, বিসমিল্লাহ গ্রুপের ঋণ কেলেঙ্কারি যার সর্বশেষ উদাহরণ।
বলাবাহুল্য, এটা হলো প্রচারিত সংবাদ। কিন্তু এর বাইরে গোপনে গোপনে আরো অনেক হাজার কোটি টাকা ব্যাংক থেকে ক্ষমতাসীন প্রভাবশালী ব্যক্তিদের দ্বারা এখনো নির্বিচারে লুটপাট হচ্ছে।
বাংলাদেশ ব্যাংকের নিবিড় পর্যবেক্ষণে থাকার পরও রাষ্ট্র খাতের সোনালী, জনতা, অগ্রণী ও রূপালী ব্যাংকের অবস্থার কোনো উন্নতি নেই। সরকার দলীয় বিবেচনায় এই ব্যাংকগুলোর পরিচালক ও শীর্ষ ব্যবস্থাপনা পদে লোকবল নিয়োগ দেয়। ঋণ বিতরণ থেকে পদোন্নতি সব ক্ষেত্রেই থাকে দলীয় প্রাধান্য।
রাষ্ট্রীয় মালিকানার অনেক ব্যাংক বিনিয়োগের গুণগত মান যাচাই-বাছাই না করেই ক্ষমতাসীনদের নির্দেশের কারণে ঋণ বিতরণ করেছে, যা পরবর্তীতে ব্যাংকের জন্য বোঝা হয়ে ঝুঁকিভিত্তিক সম্পদে রূপান্তরিত হয়েছে। এর সামগ্রিক প্রভাব ব্যাংকের সংরক্ষিত মূলধন ঘাটতির উপর নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে।
ব্যাংকগুলোকে কোম্পানিতে রূপান্তর করা হলেও কোম্পানির অনুশাসন অর্থ মন্ত্রণালয় বা ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ এবং এমনকি অর্থমন্ত্রী নিজেই অনুসরণ করে না। এর বড় উদাহরণ হলো ব্যাংকগুলোতে সরকার সরাসরি চেয়ারম্যান, পরিচালক নিয়োগ দেয়, গেজেট প্রকাশ করে। অর্থমন্ত্রী তা গণমাধ্যমের সামনে তুলে ধরে। কিন্তু কোম্পানি কাঠামোতে পরিচালক নিয়োগ হয় বার্ষিক সাধারণ সভায় (এজিএম)। পরে পরিচালকরা তাদের মধ্য থেকে যোগ্য বিবেচনায় চেয়ারম্যান নিয়োগ দেয়। কিন্তু বছরের পর বছর ব্যাংকগুলোতে সরকার ‘নিজের লোকদের’ পরিচালক ও চেয়ারম্যান নিয়োগ করে গেজেট প্রকাশ করে আসছে।
ক্ষমতাসীনদের নেকভাজন বেক্সিমকো গ্রুপের বিপুল অঙ্কের ঋণ নিয়ে বিপাকে রয়েছে দেশের ব্যাংকিং খাত। বিশেষ করে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলো জিম্মি হয়ে পড়েছে গ্রুপটির কাছে। সোনালী, রূপালী, অগ্রণী ও জনতা ব্যাংকে ক্রমেই বেড়ে চলছে প্রতিষ্ঠানটির দেনার পরিমাণ। ২০১২ সাল শেষে চার ব্যাংকের পাওনা দাঁড়ায় ৫ হাজার ৯০২ কোটি টাকা। এসব দেনার বিষয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশনাও কার্যকর হচ্ছে না।
সরকারি ব্যাংক বাঁচানোর দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল সরকারের নিকটতম লোকদের কাছে। তারা এখন লুটে খাচ্ছে ব্যাংকের হাড়-অস্থিমজ্জাটুকুও। কেউ ঋণগ্রহীতার কাছ থেকে সুবিধা নিয়ে জামানত ছাড়াই দিয়ে দিচ্ছে কোটি কোটি টাকার ঋণ। আবার কেউ সমাজসেবার নামে ব্যাংকের টাকায় দান-খয়রাত করছে উদার হাতে। কেউ অনৈতিকভাবে শ্রেণীকৃত ঋণ অশ্রেণীকৃত করছে। আবার কেউ ইচ্ছামাফিক ঋণের জামানত পরিবর্তনের সুযোগ করে দিচ্ছে। ক্ষমতাসীনদের হাতের মুঠোয় পড়া রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোর পরিস্থিতি এখন সেই গ্রাম্য প্রবাদের মতো- বেড়া এখন নিজেই খেত খাচ্ছে।
ক্ষমতাসীন দলের প্রভাব খাটিয়ে নিয়োগপ্রাপ্ত পরিচালকদের কর্মকা- এবং রাষ্ট্রীয় ব্যাংকগুলোর অনিয়ম সম্পর্কে অবহিত করে সম্প্রতি কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের কাছে প্রতিবেদনও পাঠানো হয়েছে।
কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রতিবেদনে বলা আছে- সরকারি ব্যাংকগুলোর হিসাব বইয়ে বিপুল পরিমাণ ঋণের সন্ধান পাওয়া গেছে যার কোনো খোঁজ নেই। এছাড়া ঋণগ্রহীতাদের ব্যবসায়িক অভিজ্ঞতা, ব্যবসায়িক লেনদেন ও পর্যাপ্ত জামানত না নিয়েই ঋণ অনুমোদন ও ঋণ নবায়ন করার মতো অনিয়ম হয়েছে। কিছু অনিয়মের সঙ্গে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ ও পরিচালনা পর্ষদের সদস্যরাও জড়িত বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। বলা হয়েছে- ঋণ অনুমোদন বিষয়ে শাখা এবং প্রধান কার্যালয়ের ঋণ কমিটির সুস্পষ্ট নেতিবাচক মন্তব্য থাকা সত্ত্বেও পরিচালনা পর্ষদ তা আমলে না নিয়ে অনুমোদন করেছে। এসব টাকা বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই নগদ উত্তোলন করা হয়েছে, যা মূলত অস্ত্রের মুখে ব্যাংক ডাকাতির চেয়েও বড় ধরনের ব্যাংক লুটপাট।
মূলত, রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের সব টাকা সরকারের নয়, জনগণের। কিন্তু সরকারের নিকটাত্মীয় ও প্রভাবশালী মহল এখন অস্ত্র ব্যবহার না করে ভুয়া ঋণপত্র তথা কাগজপত্র তৈরি করে দলের প্রভাব খাটিয়ে অবাধে হাজার হাজার কোটি টাকা লুটপাট করছে। আর সরকারের মুখপাত্র অর্থমন্ত্রী বলছে- চার হাজার কোটি টাকা ব্যাংক দুর্নীতি বড় কোনো বিষয় নয়। নাঊযুবিল্লাহ!
বলাবাহুল্য, জনগণের সচেতনতা ও অন্যায় তথা শোষণের বিরুদ্ধে সোচ্চার মনোভাবের অভাবের কারণেই স্বাধীনতা-উত্তর ব্যাংক ডাকাতির চেয়েও বর্তমানে বড় ধরনের ব্যাংক লুটপাট হচ্ছে। কিন্তু অস্ত্রের মুখে নয়। নীরবে-নিভৃতে ক্ষমতাসীনদের প্রভাব খাটিয়ে ভুয়া কাগজপত্রের মাধ্যমে ক্ষমতাসীন দুর্নীতিবাজরা সাগর চুরি করছে। আর গরিব জনসাধারণ ধুকে ধুকে তিলে তিলে শোষিত হচ্ছে। কিন্তু তারপরেও জনগণ অজ্ঞ ও নিষ্ক্রিয় থেকে যাচ্ছে। অজ্ঞতা গুনাহ। নিজের হক্ব উপলব্ধি করা ও রক্ষা করা ফরয। নিজের হক্ব কেউ নষ্ট করতে চাইলে তার বিরুদ্ধে জিহাদের অনুমতি রয়েছে। কাজেই জনগণকে বঞ্চিত করে বর্তমান ক্ষমতাসীন প্রভাবশালী ব্যক্তিদের দ্বারা রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের টাকা মহালুটপাটের বিরুদ্ধে জনগণকেই সচেতন ও সক্রিয় হতে হবে। মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মাঝে ইরশাদ মুবারক করেন, “তোমরা যালিম হয়ো না, মজলুমও হয়ো না।”
মূলত, এসব অনিয়ম ও দুর্নীতি থেকে উত্তরণ লাভ করার ও দেশের সম্পদ রক্ষা করার মতো দায়িত্ববোধ আসে ইসলামী অনুভূতি ও প্রজ্ঞা থেকে। তবে এর জন্য চাই নেক ছোহবত তথা ফয়েজ তাওয়াজ্জুহ। যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, যামানার মুজাদ্দিদ, মুজাদ্দিদে আ’যম, উনার নেক ছোহবতেই কেবলমাত্র সে মহান ও অমূল্য নিয়ামত হাছিল সম্ভব। মহান আল্লাহ পাক তিনি আমাদেরকে তা নছীব করুন। (আমীন)
বিশেষ প্রতিবেদন
১৯৭১-এ মওদুদীবাদী জামাতের মুখপত্র দৈনিক সংগ্রাম-এর ভূমিকা (পর্ব-৫)
ধরাছোঁয়ার বাইরে ৬৪, কারাগারে ৪৫ মৃত্যুদ-প্রাপ্ত সন্ত্রাসবাদী ক্যাডার-৫
ফিরে দেখা ইতিহাস
ঘাতক রাজাকার, আল-বাদর মওদুদী জামাতী, দেওবন্দী খারিজী, ওহাবী সালাফীদের দিনলিপি
১৭ সেপ্টেম্বর ১৯৭১ ঈসায়ী
মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন, “তোমরা তোমাদের সবচেয়ে বড় শত্রু হিসেবে পাবে প্রথমতঃ ইহুদীদেরকে; অতঃপর মুশরিকদেরকে।”
ইহুদীরা পূর্ব থেকেই দ্বীনদার আলিম সেজে দ্বীনে হানিফ তথা পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার ক্ষতি করতো।
যেমনটি করেছে ব্রিটিশরা তাদের গুপ্তচর হেমপারের মাধ্যমে ইবনে ওহাব নজদীর দ্বারা ওহাবী মতবাদ তৈরি করে।
অপরদিকে ইহুদী মুনাফিক সউদী শাসকগং ১৮০৬ সালেও নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার জিসিম মুবারক স্থানান্তরের অপচেষ্টা করেছিল। নাঊযুবিল্লাহ!
সউদী ইহুদী ওহাবী মুনাফিক শাসক গোষ্ঠীর এ অপতৎপরতা যেমন নতুন নয়; তেমনি মুসলমান আলিম সেজে সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার নামে গুমরাহী ও কুফরী মতবাদ তৈরি করাও নতুন নয়।
কাজেই বর্তমান সউদী ইহুদী ওহাবী মুনাফিক শাসক গোষ্ঠীও যেমন আবারো এ ধরনের চরম বেয়াদবি করতে পারে; তেমনি ইহুদী-খ্রিস্টানরাও তাদের এজেন্টদের মাধ্যমে পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার নামে নতুনভাবে আরেক ইবনে ওহাব নজদী তৈরি করতে পারে।
জাকির নায়েক নামধারী কাফির নালায়েক এটারই উদাহরণ।
পবিত্র হেজাজ ভূমির শাসক নামধারীদের ইতিহাস এবং সব গুমরাহীমূলক মতবাদ তৈরির ইতিহাস জানা প্রত্যেক মুসলমানের জন্য ফরয। এবং তাদের বিরুদ্ধে জিহাদের জন্য প্রস্তুত হওয়াও ফরয।
দেশের খবর
সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের রায়:
ধাড়ি রাজাকার সাঈদীর সাজা কমিয়ে আমৃত্যু কারাদণ্ড!
রায় রিভিউয়ের সুযোগ নেই -অ্যাটর্নি জেনারেল
সাঈদীর রায়ে মর্মাহত আইনমন্ত্রী
বিল পরিশোধ করেও গ্যাস পাচ্ছেন না গ্রাহকরা
বিশ্বের অন্যান্য দেশ ফিলিস্তিনকে স্বীকৃতি দিলেও মার্কিন সাম্রাজ্যবাদ এখন পর্যন্ত স্বীকৃতি দেয়নি -মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী
আজ ও আগামী রোববার মওদুদীবাদী ধর্বব্যবসায়ী জামাতের হরতাল
মুচকি হাসি!
সাঈদীর রায় মেনে নিয়েছে ১৪ দল ॥
আঁতাতের অভিযোগকারীরা জ্ঞানপাপী -নাসিম
রায় প্রতিক্রিয়া :
পুলিশের সঙ্গে জামাত-শিবির সংঘর্ষে লিপ্ত হয়
দেইল্যা রাজাকার সাঈদীর সাজা কমানোয় বিভিন্ন মহলের ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া
সাতছড়ি থেকে আবারো বিপুল অস্ত্র উদ্ধার
রাজাকার কামারুজ্জামানের আপিল মামলার রায় যেকোনো দিন
দল হিসেবে জামাত হরতাল দিতেই পারে -স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী
জাতিসংঘের সাথে সম্পর্ক আরো উচ্চতায় নিতে চাই -প্রধানমন্ত্রী
ঝিলমিল আবাসিক প্রকল্প :
মালয়েশিয়ার সঙ্গে সমঝোতা স্মারক সই
দেশে ঋণখেলাপি ১ লাখ ৪৫ হাজার ১৬২ জন
গরু পালনে খুলনায় হাজার হাজার মানুষ স্বাবলম্বী হয়েছে
জাল টাকা মিললো সোনালী ব্যাংকের বান্ডিলে!
সংবিধান ছেড়া নেকড়ার মতো ছুড়ে ফেলা হবে -এমকে আনোয়ার
১২ যুগ্মসচিব পদে রদবদল
গত ৫ বছরে সরকারি প্রকল্পসমূহের গড় ব্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে শতকরা ৪২ ভাগ
৮ মাসে ১৯৩টি মামলার অনুমোদন দিয়েছে দুদক
পাতে ইলিশ ফেরাতে উঠেপড়ে লেগেছে পশ্চিমবঙ্গ
ম্যাডাম বইটি পড়লে ভুল বোঝাবুঝির অবসান ঘটবে -মওদুদ
কমিশন কারো চাপে নেই সম্পূর্ণ স্বাধীন -দুদক সচিব
চরমপন্থী তৎপরতা:
দিনে সাধারণ, রাতে ভয়ঙ্কর!
অর্ধযুগ পরও ডিসিসির বহুতল কার পার্কিং চালু হয়নি
৪ ঘণ্টা বিদ্যুতহীন সাত মন্ত্রণালয়
মাওয়া লঞ্চঘাট এলাকা পদ্মায় বিলীন
Anjuman-e Al Baiyinaat, Sweden






For the satisfaction of Mamduh Hazrat Murshid Qeebla Alaihis Salam
Site designed & developed by Muhammad Shohel Iqbal