অনুগ্রহ করে অপেক্ষা করুন...
 

যামানার লক্ষ্যস্থল ওলীআল্লাহ, যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, ইমামুল আ’ইম্মাহ, মুহইস সুন্নাহ, ক্বাইয়্যুমুয্ যামান, কুতুবুল আলম, হুজ্জাতুল ইসলাম, সুলত্বানুল আউলিয়া ওয়াল মাশায়িখ, ছাহিবু সুলত্বানিন নাছীর,
মাহিউল বিদয়াহ, রসূলে নুমা, গাউছুল আ’যম, সাইয়্যিদুল আউলিয়া, ইমামুল উমাম, সাইয়্যিদুল খুলাফা, আস সাফফাহ, হাবীবুল্লাহ্, আওলাদে রসূল, রাজারবাগ শরীফ-এর মুর্শিদ ক্বিবলাহ
The Daily Al Ihsan
বিশ্বের সমস্ত দেশ থেকে পঠিত আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাত এর
আক্বীদায় প্রতিষ্ঠিত একমাত্র আন্তর্জাতিক ইসলামী পত্রিকা
Arabic .  বাংলা .  Urdu .  English .  Japanese .  Swedish
২৯ মাহে মুহররমুল হারাম, ১৪৩৬ হিজরী, ২৫ সাদিছ, ১৩৮২ শামসি
২৩ নভেম্বর, ২০১৪ ঈসায়ী সন, ৯ অগ্রহায়ন, ১৪২১ ফসলী সন
ইয়াওমুল আহাদি (রোববার)
al-ihsan al-ihsan al-ihsan
al-ihsan
মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম উনার দোয়ার বরকতে মুসলমানদেরকে জুলুম নির্যাতন করার ফলে জুলুমবাজ কাফিরদের উপর খোদায়ী গজব
  • <font class='SlideCaptionBN'>জাপানের মধ্যাঞ্চলে একটি শক্তিশালী ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে। রিখটার স্কেলে এর তীব্রতা ছিল ৬ দশমিক ৮ মাত্রা।</font>
  • <font class='SlideCaptionBN'>রাশিয়ার উরাল পর্বত এলাকায় উন্মুক্ত হয়েছে বিশাল ও ভয়ঙ্কর সিঙ্কহোল।</font>
  • <font class='SlideCaptionBN'>৭ ফুট বরফের নিচে ডুবে আছে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক স্টেট।</font>
Al Baiyinaat : e Version Al Ihsan : e Version
সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ উপলক্ষে প্রকাশিত
পোষ্টার, স্ক্রিনসেভার, ওয়ালপেপার সমুহ ডাউনলোড করুন।
বিশ্বের সমস্ত দেশ ও শহর থেকে পঠিত
ইসলামী শরীয়ত সম্মত একমাত্র পত্রিকা
"দৈনিক আল ইহসান"

বিজ্ঞাপনের মুল্য তালিকা
নামাজের সময়সূচী
জেলা : ঢাকা ও পার্শ্ববর্তী এলাকা
ওয়াক্তশুরুশেষ
সাহ্‌রীর শেষ সময়০৪:৫৪
ফজর০৪:৫৯০৬:১৫
ইশরাক০৬:৩৯০৭:৪৯
চাশত্‌০৭:৫০১০:৪৪
জাওয়াল১১:৪৫যোহর নামায পড়ার পূর্ব পর্যন্ত
যোহর১১:৪৫০৩:৩৬
আছর০৩:৩৭০৪:৫৪
মাগরিব০৫:১৭০৬:৩০
আওয়াবীনবাদ মাগরিব০৬:৩০
ইশা০৬:৩১০৪:৫৫
তাহাজ্জুদ১১:০৬০৪:৫৫
আগামীকাল ফজর০৫:০০০৬:১৬
আগামীকাল সূর্যোদয়০৬:১৭-
আজ সূর্যোদয়০৬:১৬-
আজ সূর্যাস্ত০৫:১২-
সূত্র: গবেষণা কেন্দ্র- মুহম্মদিয়া জামিয়া শরীফ, ঢাকা

 
Saieedul Aaiyad
Saieedul Aaiyad
Saieedul Aaiyad
RajarbagShareef.net
Radio 'Al-Hikmah'
Special Days in Islam
majlisu-ruiatil-hilal
International Voice Room
Noorun Alaa Noor
Donate for Daily Al Ihsan Shareef Donate for Daily Al Ihsan Shareef


» কোরআন শরীফের তরজমা ও তাফছির(তরজমায়ে মুজাদ্দিদে আজম)
» ফিক্বহুল হাদিস ওয়াল আছার
» আহ্‌লে সুন্নাত ওয়াল জামাতের আক্বীদা
» মারিফাতুছ ছাহাবা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম
» আউলীয়া-ই-কিরাম রহমতুল্লাহী আলাইহিম
 
» আত-তাক্বউইমুশ শামসি
» ইসলামের বিশেষ দিন সমূহ
» আহ্‌কামু রমাদ্বানাল মুবারক
» আহ্‌কামুয্‌যাকাত
(যাকাতের হুকুম-আহ্‌কাম)
» বিষয় ভিত্তিক বিশেষ প্রবন্ধ
 
» মাসিক আল বাইয়্যিনাত
» ওয়াজ শরীফ
» ক্বাছীদা আনজুমান
» মক্ববুল মুনাজাত শরীফ
» প্রকাশিত কিতাব সমূহ
 
» ফতওয়া বিভাগ
» সুওয়াল জাওয়াব বিভাগ
» মাসের ফজিলত ও প্রাসঙ্গিক আলোচনা
 
» পত্রিকার মূল সংস্করণ
 
» আপনার মতামত পাঠান
» আর্কাইভ থেকে পড়ুন
 
» সুন্নতি সামগ্রী
» কবিতা
» সবুজ বাংলা ব্লগ

 
মুজাদ্দিদে আ’যম হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম-উনার ক্বওল শরীফ
মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, (হে আমার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম!) মহান আল্লাহ পাক উনার বিশেষ বিশেষ দিনগুলো ঈমানদার বান্দা উনাদেরকে স্মরণ করিয়ে দিন। নিশ্চয়ই এতে ধৈর্য্যশীল, শোকরগোযার বান্দাদের জন্যে নিদর্শনাবলী রয়েছে।
আজ পবিত্র ছফর শরীফ মাস উনার চাঁদ তালাশ করতে হবে।
যে সম্মানিত মাস উনার মধ্যে পবিত্র আখিরী চাহার শোম্বাহ শরীফসহ আরো অনেক বিশেষ বিশেষ দিন ও রাত মুবারক রয়েছে।
যা মহান আল্লাহ পাক উনার ও উনার রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের খাছ রেযামন্দি মুবারক হাছিলের মাধ্যম।
তাই সকলের দায়িত্ব-কর্তব্য হচ্ছে, আগত পবিত্র ছফর শরীফ মাস উনার বিশেষ বিশেষ দিন ও রাত মুবারকগুলো যথাযথভাবে পালন করে রহমত, বরকত, নিয়ামত, সাকিনা হাছিল করার মাধ্যমে হাক্বীক্বী রিযামন্দী হাছিল করা।
ইসলামী শিক্ষা
পবিত্র মীলাদ শরীফ ও পবিত্র ক্বিয়াম শরীফ উনাদের সঠিক ও গ্রহণযোগ্য ফায়ছালা (৪৪০)
নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত আব্বাজান সাইয়্যিদুন নাস, সাইয়্যিদুল বাশার, মালিকুল জান্নাহ সাইয়্যিদুনা যবীহুল্লাহ আলাইহিস সালাম উনার এবং আম্মাজান সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, আফদ্বালুন নাস আফদ্বলুন নিসা বা’দা রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, মালিকাতুল জান্নাহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মু রসূলিনা আলাইহাস সালাম উনাদের বেমেছাল ফাযায়িল-ফযীলত, বুযূর্গী-সম্মান মুবারক ও পবিত্রতা মুবারক -৪
গ্রন্থ সমালোচনা
জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড কর্তৃক ৩য় শ্রেণীর পাঠ্যপুস্তকরূপে নির্ধারিত
‘ইসলাম ও নৈতিক শিক্ষা’ বইয়ের যে বিষয়গুলো সংশোধন করা জরুরী অর্থাৎ ফরয
লা-মাযহাবীদের আতঙ্ক হযরত ইমামে আ’যম রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার বুযূর্গী
আরবী ১২টি মাসে মুসলমান উনাদের জন্য পালনীয়
বিশেষ বিশেষ রাত ও দিনসমূহ
আপনাদের মতামত
মুজাদ্দিদে আ’যম সাইয়্যিদুনা ইমাম রাজারবাগ শরীফ উনার মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার মকবুল মুনাজাত শরীফ-এ বেমেছাল রূহানীয়ত সমৃদ্ধ রোব মুবারক উনার ফলেই খোদায়ী গযবে পর্যুদস্ত বিশ্বের সকল কাফির-মুশরিকদের দেশ
পশ্চিমা এজেন্ট খ্রিস্টান-গারো প্রতিমন্ত্রী প্রমোদ মানকিনের ইসলাম বিরোধী বক্তব্যের জন্য তাকে উপযুক্ত শাস্তি প্রদান ও মন্ত্রিপরিষদ থেকে অপসারণের দাবি
নিজেরা অসভ্য, বর্বর, পশুর মতো না হলে হিন্দু সম্প্রদায়ের দালালি করবে কিভাবে? আবুল মকসুদ, রুবায়েত ফেরদৌস গং কী এদেশে হিন্দু অসভ্যতা প্রতিষ্ঠিত করতে চায়? -২
সর্বপ্রকার খেলা হারাম।
কাজেই খেলাধুলা করাকে হারাম হিসেবেই মানতে হবে; অন্যথায় যালিম হিসেবে সাব্যস্ত হতে হবে
সম্পাদকীয়
সমস্ত প্রশংসা মুবারক খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার জন্য; যিনি সকল সার্বভৌম ক্ষমতার মালিক। সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নবী আলাইহিমুস সালাম উনাদের নবী, রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদের রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার প্রতি অফুরন্ত পবিত্র দুরূদ শরীফ ও সালাম মুবারক।
চলতি ২০১৪ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ঢাকাসহ সারাদেশে প্রায় দুইশ’ ভেজালবিরোধী অভিযান চালিয়েছে র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময়ে ভেজাল-নকল পণ্য উৎপাদন ও বাজারজাতের দায়ে ৪৫০ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেয়া হয়েছে। মামলা হয়েছে ২৩৫টি। আর জরিমানা আদায় করা হয়েছে ১ কোটি ৩০ লাখ টাকা।
সরকারের মাননিয়ন্ত্রণ সংস্থা বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশন (বিএসটিআই) সূত্র জানিয়েছে, ভেজালরোধে গত এক বছরে (২০১৩-১৪ অর্থ বছর) সংস্থাটি সারাদেশে এক হাজার ৯৬টি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেছে। এ সময় ভেজালকারীদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে এক হাজার ৭৫৮টি। জরিমানা আদায় করা হয়েছে ৪ কোটি ৩ লাখ টাকা। পাশাপাশি বিএসটিআই’র স্কোয়াড টিম সরেজমিনে অভিযান চালিয়েছে ৭৪৫টি। নিয়মিত মামলা করা হয়েছে ২৫৯টি।
দৃশ্যতঃ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর অভিযান চলছে নিয়মিতই। তারপরও ভেজাল খাদ্য উৎপাদন বন্ধ হচ্ছে না।
২০১০-১১ অর্থবছরে দেশে সাত হাজার ২৬৮ মেট্রিক টন এবং ২০১১-১২ অর্থবছরে সাত হাজার ৮৩৩ মেট্রিক টন ফরমালিন-জাতীয় রাসায়নিক আমদানি হয়। ২০১২-১৩ অর্থবছরে দেশে ফরমালিনের আমদানি অস্বাভাবিক হারে বেড়ে ১০ হাজার ৩৯৭ টন এবং ২০১৩-১৪ অর্থবছরে তা ১১ হাজার টন অতিক্রম করে।
দেশে শিল্পপ্রতিষ্ঠানে ব্যবহারের জন্য বছরে ১০০ মেট্রিক টনের বেশি ফরমালিনের প্রয়োজন নেই। অর্থাৎ বাকি ফরমালিন ব্যবহৃত হচ্ছে খাদ্যে এবং তাতে তৈরি হচ্ছে ভেজাল তথা বিষাক্ত খাদ্য।
দৃশ্যতঃ এর একটি কারণ হলো ভেজালকারীদের অপরাধ নির্ণয় করে কঠোর ব্যবস্থা না নিয়ে যে শাস্তি দেয়া হয় তা হলো, দু’এক মাসের জেল বা কিছু টাকা জরিমানা। এমনও দেখা যায়, একই প্রতিষ্ঠানে অল্প সময়ের ব্যবধানে দ্বিতীয়বার অভিযান চালানো হলে আবারো ফরমালিন মেশানো ফল পাওয়া যাচ্ছে। অপরাধীরা এবং অসৎ ব্যবসায়ীরা আবারো সেই ফরমালিন মেশানো ফল বিক্রি করতে শুরু করে পুরোদমে। এসব অসৎ ব্যবসায়ীদের জেল জরিমানা এমনকি লাখ-লাখ টাকার মালামাল নষ্ট করে ফেলার পরও অবাধে ভেজাল ও ফরমালিন মিশিয়ে ক্রেতাদের জীবন দুর্বিষহ করে তোলে এবং নীরবে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে সবাইকে।
ভেজাল খাদ্য দমনে হাইকোর্ট ২০০৯ সালের ১ জুন এবং ২০১০ সালে দুটি রায় দেয়। ২০০৯ সালের রায়ে খাদ্যনিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য বেশ কিছু নির্দেশনা দেয় এবং ২০১০ সালে হাইকোর্ট জনস্বার্থে ভেজালবিরোধী অভিজান পরিচালনার জন্য আইজিপি, বিডিআর ও র‌্যাব মহাপরিচালক, বিএসটিআই ও জেলা প্রশাসনকে নির্দেশ প্রদান করে এবং আদালত তার রায় সরকারকে বাংলাদেশের প্রতিটি জেলা ও মহানগরে বিশুদ্ধ খাদ্য আদালত (ফুড কোর্ট) স্থাপন এবং খাদ্য বিশ্লেষক ও খাদ্য পরিদর্শক নিয়োগের আদেশ দেয়। কিন্তু ওই রায় বাস্তবায়িত হয়নি। ২০১০ সালের ১৬ আগস্ট হাইকোর্ট আবার একটি আদেশ দিয়ে প্রশাসনকে খাদ্যে ভেজাল মেশানোর সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা করার নির্দেশ দেয়। কিন্তু ওই আদেশও কার্যকর হচ্ছে না। এরপর একটা কথিত মানবাধিকার সংস্থার এক রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ ২০১১ সালের ২৬ মে মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর কেমিক্যাল ফলমুলে মেশানো বন্ধ করতে সরকারকে ছয়টি নির্দেশ দেয়। কিন্তু তার একটিও বাস্তবায়িত হয়নি।
উল্লিখিত সংস্থার আরেকটি রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ ২০১২ সালের ২৯ ফেব্রুয়ারি ফল পাকানো ও সংরক্ষণে কেমিক্যালের ব্যবহার অবৈধ ঘোষণা এবং ফলমুলে কেমিক্যাল ব্যবহারকারীদের বিরুদ্ধে ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা করতে পুলিশকে নির্দেশ দেয়। দূষিত ফল যেন কেউ গুদামজাত ও বিক্রি করতে না পারে তা সর্বদা মনিটর করার জন্য বিএসটিআই ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে নির্দেশ দেয়। এছাড়া আদালত দেশের স্থল ও নৌবন্দরে আমদানি করা ফল কেমিক্যাল মেশানো কিনা তা পরীক্ষার ব্যবস্থা করতে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডকে নির্দেশ দেয়। কিন্তু এতেও কাজ না হওয়ায় ৭ অক্টোবর ২০১৩ জাতীয় সংসদে খাদ্য নিয়ন্ত্রণ সংক্রান্ত বিদ্যমান আইন- ‘পিউর ফুড অর্ডিন্যান্স, ১৯৫৯’ রহিত করে ‘নিরাপদ খাদ্য আইন, ২০১৩’ বিলটি পাস করা হয়। এতে জাতীয় নিরাপত্তা খাদ্য ব্যবস্থাপনা উপদেষ্টা পরিষদ গঠন, বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ প্রতিষ্ঠা এবং কেন্দ্রীয় নিরাপদ খাদ্য ব্যবস্থাপনা সমন্বয় কমিটি গঠনের বিধান রাখা হয়েছে।
আইনে খাদ্যে বিষ ও ভেজালযুক্ত করণের ক্ষেত্রে ১৩ ধরনের অপরাধের ক্ষেত্রে আমলযোগ্যতা অর্থাৎ বিনা ওয়ারেন্টে গ্রেফতারের ক্ষমতা প্রদান করা হয়েছে এবং এসব অপরাধকে অজামিনযোগ্য করা হয়েছে। খাদ্যে ভেজাল মেশানোর অপরাধে সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদ-ের বিধান রয়েছে দেশের প্রচলিত আইনেই। ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনে ২৫ (গ) এর ১(ঙ) ধারায় খাদ্যে ভেজাল, ওষুধে ভেজাল, ওষুধে ভেজাল মেশালে বা ভেজাল খাদ্য ও ওষুধ বিক্রি করলে বা বিক্রির জন্য প্রদর্শন করলে অপরাধী ব্যক্তির মৃত্যুদ- বা যাবজ্জীবন কারাদ- বা ১৪ বছরের কারাদ-ের বিধান রয়েছে। কিন্তু এসব আইনে সর্বোচ্চ শাস্তি দেয়ার দৃষ্টান্ত আজ পর্যন্ত এ দেশে হয়নি। অথচ ভেজালের দৌরাত্ম্য কি ভয়াবহ মহামারীরূপে দেখা দিয়েছে তা বলাই বাহুল্য।
জীবনের জন্য খাদ্যদ্রব্য অপরিহার্য। কিন্তু খাদ্যদ্রব্যের মধ্যে যদি বিষ থাকে তাহলে এর কুফলটা কত ভয়াবহ হতে পারে কত বড় নীরব ঘাতক হতে পারে এর ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ নিষ্প্রয়োজন। সরকার ও প্রশাসনকে জনস্বাস্থ্য রক্ষায় কঠোর পদক্ষেপ নিতে হবে। ভেজাল দমন আইনের সর্বোচ্চ ধারা তথা মৃত্যুদ- প্রাসঙ্গিক সবক্ষেত্রে প্রয়োগ করতে হবে। পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার মধ্যে বলা হয়েছে অপরাধীর কতলের মধ্যে অপরাপর মানুষের জীবন নিহিত।
মূলত, এসব অনুভূতি ও দায়িত্ববোধ আসে পবিত্র ঈমান ও পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনাদের অনুভূতি ও প্রজ্ঞা থেকে। আর তার জন্য চাই নেক ছোহবত তথা মুবারক ফয়েজ, তাওয়াজ্জুহ।
যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, যামানার মুজাদ্দিদ, মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম উনার নেক ছোহবতেই সে মহান ও অমূল্য নিয়ামত হাছিল সম্ভব। মহান আল্লাহ পাক তিনি আমাদেরকে তা নছীব করুন। (আমীন)
বিশেষ প্রতিবেদন
ফিরে দেখা ইতিহাস : ঘাতক রাজাকার, আল-বাদর মওদুদী জামাতী, দেওবন্দী খারিজী, ওহাবী সালাফীদের দিনলিপি : ২২ নভেম্বর ১৯৭১ ঈসায়ী
একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে অভিযুক্ত মওদুদীবাদী জামাতের সাবেক আমির গো’আযম। ১৯৭১ সালের ২৫ ও ২৬ মার্চ পাকী বাহিনীর হামলায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ, পলাশি ফায়ার সার্ভিস, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মাঠ, রোকেয়া হল, ব্রিটিশ কাউন্সিলের চতুর্দিকে লাশের পর লাশ পড়েছিল। ২৭ মার্চ তারিখে কয়েক ঘণ্টার জন্য কারফিউ শিথিল করা হয়েছিল।
কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধা জিঞ্জিরায় মুক্তিযুদ্ধের ঘাঁটি তৈরি করে। জিঞ্জিরিয়ায় পাকী বাহিনী আক্রমণ করেছিল সেটা তাদের কারণেই। তবে তারা সে আক্রমণের মুখে টিকে থাকতে না পেরে জায়গা পরিবর্তন করে জিঞ্জিরার কৈটা নামের স্থানে চলে যায়। এরপর তারা বিভিন্ন জায়গায় বেশ কয়েকদিন পালিয়ে বেড়ায়। পরে আগস্ট মাসে প্রথম সপ্তাহে তারা ভারতে চলে যায়। সেখানে আগরতলা হয়ে মেলঘরে ট্রেনিং নিয়ে দেশে ফিরে সজিব বাহিনীতে যোগ দেয়। তাদের ওয়াই বা ইয়াং প্লাটুন বলা হতো। সে দলের সদস্য হলো আহমদ ইমতিয়াজ বুলবুল।
এরপর অক্টোবর মাসে ২৯ তারিখে আবারো ভারত যাওয়ার পথে আহমদ ইমতিয়াজ বুলবুল, মানিক, মাহবুব ও সারোয়ার পাকিস্তানী আর্মি ও রাজাকারদের হাতে বন্দি হয়। কুমিল্লা ও বি-বাড়িয়ার মঝামাঝি তন্তর চেক পোস্টে আটক হয়। সেখানে ঘণ্টাখানেক জিজ্ঞাসাবাদের পর যখন তারা বারবার বলছিলো তারা মুক্তিযোদ্ধা নয়, তখন পাশবিক নির্যাতন শুরু করে। একটানা আড়াই থেকে তিন ঘণ্টা নির্যাতনের পর তাদের চারজনকে উলঙ্গ করে ফেলে। তখন তাদের পরনে শুধু জাঙ্গিয়া ছিল। এরপর পাকী সুবেদার আমাদের হত্যার নির্দেশ দেয়। সে মোতাবেক পাশের মসজিদ থেকে একজন ইমাম ডেকে নিয়ে তাদের গরম পনিতে গোসল করিয়ে তওবা পড়ানো হয়। এরপর দু’জন মিলিটারি মেশিনগান বা ঐ জাতীয় কিছু তাক করেছিল। হঠাৎ করে নিস্তব্ধতার ভেতরে একটি ওয়্যারলেস বেজে উঠে- ‘মুক্তিকো হেডকোয়ার্টার মে লে আও।’
এরপর তাদের গুলি না করে উলঙ্গ অবস্থায় প্রায় ৫ ঘণ্টা বাসের মধ্যে নিচে বসিয়ে বি-বাড়িয়ার রাজাকার হেডকোয়ার্টারে ৪ জনকে নিয়ে যায়। পরে গালিগালাজ ও নির্যাতন করে তাদের ৪ জনকে বি-বাড়িয়া জেলখানায় পাঠায়। সেখানে তাদের মতো বয়সী অনেক ছাত্র বন্দি ছিল। তাদের মধ্যে কয়েকজন হলো- শহীদ নজরুল, শহীদ কামাল, কামালের বাবা শহীদ সিরু মিয়া, কুমিল্লার বাতেন ভাই, কুমিল্লার শফি উদ্দিন এবং আরো অনেকে। সে জেলখানায় সম্ভত ৫৫ জন মুক্তিযোদ্ধা বন্দি ছিল। নজরুল, সিরু মিয়া এবং কামাল তন্তর চেকপোস্টে ইমতিয়াজ গ্রুপের দু’দিন আগে ধরা পড়েছিল। তখন ছিল রমযান মাস। রোযার ঈদের দিন বি-বাড়িয়ার জেলে দরজা খুব জোরে শব্দ করে খুলে যায়। বন্দিরা সকলে চমকে উঠে। জেলের ভেতরে পাকী বাহিনী প্রবেশ করে উচ্চস্বরে ‘লাইন আপ, লাইন আপ’ বলে চিৎকার করে। ঐ কথা শুনে বন্দিরা জেলের গারদ থেকে বেরিয়ে কংক্রিটের মেঝেতে লাইন দিয়ে বসে পড়ে। সেখানে ক্যাপ্টেন আলী রেজা এবং লে. ইফতেখার ছিল। আরো ছিল ব্রিগেডিয়ার সাদুল্লাহ এবং অনেক রাজাকারসহ পেয়ারা মিয়া।
ক্যাপ্টেন আলী রেজা আঙ্গুল তুলে একজন একজন করে দাঁড় করাতে থাকে। এভাবে প্রায় ৪৩ জনকে আলাদা করা হয়। এরপর তাদের নিয়ে যাওয়া হয় এবং স্টেশনের পশ্চিমে পৈরতলা নামক স্থানে তাদের এক নাগাড়ে হত্যা করা হয়।
সারা বিশ্বে প্রশংসিত বাংলাদেশের গর্বিত, নিবেদিত, চৌকষ, বীর ও অভূতপূর্ব ত্যাগী এবং অসম সাহসী সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে তথা সেনানিবাসের বিপক্ষে
কুখ্যাত, বিতর্কিত এবং দেশবিরোধী ষড়যন্ত্র ও বিদেশী এজেন্ডা বাস্তবায়নে নিবেদিত অভিযুক্ত এনজিওগুলো কথা বলার সুযোগ পায় কি করে?
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যখন ফোর্সেস গোল-২০৩০-এর আলোকে সেনাবাহিনীর সাংগঠনিক কাঠামো বিন্যাস ও পরিবর্তন আনতে কাজ করছেন- তখন কুখ্যাত সিএইচটি নেতা সুলতানা কামাল গং সেনাবাহিনীকে প্রতিপক্ষ হিসেবে চিহ্নিত করতে উস্কানি দিচ্ছে কেন?
পার্বত্য চট্টগ্রাম নিয়ে উপজাতিদের ষড়যন্ত্রের বিস্তার করতেই কি সেনাবাহিনীকে সংকুচিত এবং সেনাবাহিনীর ক্ষমতা খর্ব করার জন্য তাদের এতো বিষোদগার।
অপরদিকে প্রথম আলো ও তার সহযোগী ডেইলী স্টার কুখ্যাত সিএইচটি গংসহ চিহ্নিত কুচক্রী এনজিওগুলোদের কভারেজ দিচ্ছে কোন্ উদ্দেশ্যে?
এদেরকে প্রতিরোধ করতে জনগণকে সচেতন হতে হবে; সরকারকে অতিসত্বর ব্যবস্থা নিতে হবে।
ঈদের দিন পাকী সৈন্যরা ৩৮ জনকে কৈরতলায় নিয়ে হত্যা করে
দেশের খবর
চাঁদ তালাশ বিষয়ে আনজুমানে আল বাইয়্যিনাত রুইয়াতে হিলাল মজলিস উনার সভা আজ
বাংলাদেশের জন্য ১৪৩৬ হিজরী সনের পবিত্র ছফর মাস উনার চাঁদের রিপোর্ট:
প্রতিদিন ১২ খুন: দেশজুড়ে বেপরোয়া খুনিচক্র
ভারত বন্ধু হলে সীমান্তে হত্যা বন্ধ হতো -মিজানুর
রাজনীতি এখন ডিএমপি’র হাতে -মান্না
ফের গ্যাস-বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধি অন্যায় -নিলু
তেল-গ্যাস-বিদ্যুতের দাম বাড়ালেই আন্দোলন
জীর্ণ দশায় দশ টাকার আতিয়া মসজিদ
গ্যাস-বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে ময়মনসিংহে মানববন্ধন
এইচটি ইমাম আমাদের লোক -বিএনপি
বাড়ি ভাড়া নির্ধারণের দাবিতে বিএমও’র মানববন্ধন
পার্বত্য জেলা সংশোধনী বিল প্রত্যাহারের দাবি
বর্বর বিএসএফের প্রশিক্ষণ নিতে বিজিবি’র ২৫ জন ভারতে
৬ বছরে কর্মক্ষেত্রে নিহত তিন সহস্রাধিক শ্রমিক
জাতিসংঘের ভিশনারি অ্যাওয়ার্ড পেলেন প্রধানমন্ত্রী
মানব পাচারে ১২ বছরের কারাদণ্ড
বিচারপ্রার্থীদের ভোগান্তি দূর করার আহ্বান সাজেদার
কড়ায় গণ্ডায় হিসাব দিতে হবে - ফখরুল
পার্বত্য আইন সংশোধন নিয়ে পাহাড়ে উত্তাপ
জাতীয় বেতন স্কেল বাস্তবায়নের দাবি
ট্রাইব্যুনালের মামলাগুলোর সর্বশেষ অবস্থা
কৃষিতে বিপ্লব ঘটাতে যাচ্ছে সোলার কম্পোস্ট ফার্টিলাইজার
আবারো ‘উল্টো পথে গেলে গাড়ির চাকা ফুটো’ যন্ত্র!
কী মিশন নিয়ে ফের আসছে নিশা দেশাই?
স্কুল-কলেজের ফি:
অতিরিক্ত ফি আদায়ে সুযোগ দিচ্ছে মন্ত্রণালয়!
ঢাকার রিকশা এখন গিনেস বুকে
বিএনপি ক্ষমতায় গেলে সন্ত্রাস-দুর্নীতি হবে না - ভ্যারিস্টার রফিকুল
দুষ্কৃতিকারীরা যেন রাজধানীতে প্রবেশ করতে না পারে -নানক
মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকার পাশাপাশি রাজাকারদেরও তালিকা প্রণয়ন করা হবে - মোজাম্মেল
জিডিপি’র ৩০ শতাংশই ক্ষুদ্র এসএমই’র অবদান
জিয়াকে হত্যার পর রাজনীতিতে সন্ধ্যা নেমেছিল -হায়দার
ছাত্রলীগ শিক্ষাঙ্গনে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে -এমকে আনোয়ার
শফিউল হত্যাকে সর্বোচচ গুরুত্ব দিচ্ছে পুলিশ -আইজিপি
চট্টগ্রাম-রাজশাহীতে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়
স্থাপনের ঘোষণা প্রধানমন্ত্রীর
বেপরোয়া হয়ে উঠেছে ছাত্রলীগ -কাদের
হাজার বোতল ভারতীয় ফেনসিডিলসহ আটক ২
জনগণের মেধা ও শ্রমে দেশের উন্নতি হচ্ছে -শিক্ষামন্ত্রী
প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা শুরু হচ্ছে আজ
রংপুরে বাড়ছে তুলার উৎপাদন
যেসব কারণে বাড়ছে খেলাপি ঋণ
বিমানের জিএম-পিআর পদ থেকে মোশাররফ অপসারিত
ভারতীয় খাসিয়া সন্ত্রাসীর গুলিতে বাংলাদেশী নিহত
মেঘনায় কার্গো ডুবি : ৮ শ্রমিক উদ্ধার, নিখোঁজ ১
Anjuman-e Al Baiyinaat, Sweden






For the satisfaction of Mamduh Hazrat Murshid Qeebla Alaihis Salam
Site designed & developed by Muhammad Shohel Iqbal